মতলব উত্তর উপজেলা নির্বাহী অফিসার গাজী মো. শরিফুল হাসান ছেংগারচর মডেল সরকারি উচ্চ বিদ্যালয় কেন্দ্র পরিদর্শন করেন।

মতলব উত্তরে প্রথমদিনেই ঝরে গেলো ৩১ পরীক্ষার্থী

ভিন্ন পরিস্থিতিতে এসএসসি পরীক্ষা

মতলব উত্তর :
দেশে করোনার প্রাদুর্ভাব দেখা দেওয়ার পর এই প্রথম পাবলিক পরীক্ষায় বসল শিক্ষার্থীরা। স্বাস্থ্যবিধি মেনে দেড় ঘণ্টা সময়ের পরীক্ষায় অংশগ্রহণ করে শিক্ষার্থীরা। তিনটি বিষয়ে পরীক্ষা নেওয়া হবে এবারের এসএসসি ও সমমানের পরীক্ষায়। উপজেলা নির্বাহী অফিসার গাজী মো. শরিফুল হাসান বিভিন্ন কেন্দ্র পরিদর্শন করেছেন।
সকালে ছেংগারচর মডেল সরকারি উচ্চ বিদ্যালয় কেন্দ্র পরিদর্শন শেষে উপজেলা নির্বাহী অফিসার গাজী মো. শরিফুল হাসান বলেন, উপজেলার ৮টি কেন্দ্রে সুষ্ঠু সুন্দর ভাবে পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হচ্ছে। পরীক্ষা কেন্দ্রের শৃঙ্খলা বজায় রাখতে ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা, তদারকি কর্মকর্তা নিয়োগ দেয়া হয়েছে। এছাড়াও মনিটরিং টীম গঠন করা হয়েছে।
রোববার থেকে শুরু হয়েছে এসএসসি ও সমমানের পরীক্ষা। স্বাস্থবিধি মেনে সকাল ১০টা থেকে শুরু হওয়া প্রথম দিনের পরীক্ষা শেষ হয় বেলা সাড়ে ১১টায়। মতলব উত্তর উপজেলার ৭টি এসএসসি ও ১টি দাখিল পরীক্ষা কেন্দ্রে প্রথমদিন পরীক্ষায় অংশ নিচ্ছে ১ হাজার ৫শ’ ৮০ পরীক্ষার্থী। অনুপস্থিত এসএসসিতে ৯, মাদরাসায় ১৪ ও ভোকেশনালে ৮জন পরীক্ষার্থী ছিল।
সংক্ষিপ্ত সিলেবাসে রোববার সকাল ১০টায় পরীক্ষায় বসে শিক্ষার্থীরা। দেড় ঘণ্টার পরীক্ষায় বিজ্ঞান বিভাগের শিক্ষার্থীদের লিখিত অংশে ৮টি প্রশ্নের মধ্যে ২টির উত্তর দিতে হয়। এমসিকিউ অংশে ২৫টির মধ্যে দিতে হয় ১২টির উত্তর। মানবিক এবং ব্যবসায় শিক্ষা বিভাগের শিক্ষার্থীদের লিখিত অংশে ১১টির মধ্যে ৩টি এবং এমসিকিউ অংশে ৩০টির মধ্যে ১৫টি প্রশ্নের উত্তর দিতে হয়।
করোনা মহামারির কারণে ২০২০ সালে এইচএসসি পরীক্ষা না হলেও এসএসসি পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হয়েছিল। এ বছরের শুরু থেকেই দুটি পরীক্ষাই আয়োজনের কথা বারবার বলে আসছে শিক্ষা মন্ত্রণালয়।