একুশে ফুটল কুড়ি-বিশের বিশ্বকাপ

আইপিএল শেষ হতে না হতেই দুয়ারে টি ২০ ক্রিকেটের আরও বড় মহাযজ্ঞ। প্রতীক্ষার দীর্ঘ প্রহর শেষে আজ মাঠে গড়াচ্ছে সপ্তম টি ২০ বিশ্বকাপ। ২০১৬ সালে সবশেষ আসরের পর আইসিসি সিদ্ধান্ত নিয়েছিল, দুই বছরের পরিবর্তে চার বছর পরপর বসবে টি ২০ বিশ্বকাপের আসর। কিন্তু করোনার সুতীব্র আক্রমণে আরেকটি টি ২০ বিশ্বকাপ দেখতে ক্রিকেটপ্রেমীদের অপেক্ষা করতে হলো দীর্ঘ সাড়ে পাঁচ বছর। গত বছর অস্ট্রেলিয়ায় বসার কথা ছিল খুদে ফরম্যাটের সপ্তম বৈশ্বিক আসর। করোনার কারণে সেটি চলে গেছে ২০২২ সালে। ২০২১ টি ২০ বিশ্বকাপের মূল আয়োজক ভারত। কিন্তু দেশটিতে করোনার তৃতীয় ঢেউয়ের শঙ্কায় জুনে ভারত থেকে আসর সরিয়ে নেওয়া হয় মধ্যপ্রাচ্যের দুই দেশ সংযুক্ত আরব আমিরাত ও ওমানে। ১৭ অক্টোবর থেকে ১৪ নভেম্বর-২৯ দিন, ১৬ দল ও ৪৫ ম্যাচের এই মেগা টুর্নামেন্ট হবে দুই দেশের চার ভেন্যুতে। এরমধ্যে ওমানের রাজধানী মাসকাটের মাত্র তিন হাজার দর্শক ধারণক্ষমতার আল আমেরাত স্টেডিয়ামে অনুষ্ঠিত হবে শুধু প্রথম রাউন্ডের ছয়টি ম্যাচ। বাকি সব ম্যাচ মাঠে গড়াবে আরব আমিরাতের তিন ভেন্যু আবুধাবি, শারজা ও দুবাইয়ে। ১৪ নভেম্বর দুবাইয়ে ফাইনাল।

ওমানে আজ শুরু হচ্ছে ছোটদের বিশ্বকাপ! বলা হয় ক্রিকেটের সংক্ষিপ্ততম সংস্করণে ছোট দল, বড় দল বলে কিছু নেই। কিন্তু খেলাটির মূল অভিভাবক আইসিসি নিজেই টেনে দিয়েছে বিভাজন রেখা। বিশ্বকাপের গ্রুপিংয়ের সময় টি ২০ র‌্যাংকিংয়ের শীর্ষ আটে থাকা দলগুলো সরাসরি খেলবে সুপার টুয়েলভ পর্বে। পেছনের সারির আট দল নিয়ে হচ্ছে প্রথম রাউন্ড। সাধারণ মানুষ এই পর্বকে বাছাইপর্বের সঙ্গে গুলিয়ে ফেলছে। তাদের চোখে সুপার টুয়েলভ পর্বটা আসল বিশ্বকাপ! বাস্তবে প্রথম রাউন্ড মূল বিশ্বকাপেরই অংশ। কিন্তু বড় দলগুলো না থাকায় প্রথম রাউন্ড নিয়ে তেমন উন্মাদনা নেই।

বাংলাদেশের ব্যাপারটা আলাদা। বর্তমানে টি ২০ র‌্যাংকিংয়ের ছয়ে থাকলেও গ্রুপিংয়ের সময় শীর্ষ আটের বাইরে থাকায় প্রথম রাউন্ড দিয়েই শুরু হচ্ছে মাহমুদউল্লাহদের বিশ্বকাপ। বাংলাদেশ সময় আজ রাত ৮টায় মাসকাটে উদ্বোধনী দিনের দ্বিতীয় ম্যাচে স্কটল্যান্ডের মুখোমুখি হবে বাংলাদেশ। এর আগে বিকাল ৪টায় একই ভেন্যুতে ওমান-পাপুয়া নিউগিনি ম্যাচ দিয়ে পর্দা উঠবে বিশ্বকাপের। প্রথম রাউন্ডের ‘বি’ গ্রুপে রয়েছে এই চার দল। ‘এ’ গ্রুপের চার দল শ্রীলংকা, আয়ারল্যান্ড, নামিবিয়া ও নেদারল্যান্ডস মাঠে নামবে আগামীকাল।

দুই গ্রুপ থেকে চার দল পাবে সুপার টুয়েলভের টিকিট। এখানেও আছে বিভাজন। ছোটদের পর্বে বড় দল হওয়ায় বাংলাদেশ ও শ্রীলংকা পাচ্ছে বিশেষ মর্যাদা। যেমন গ্রুপ রানার্সআপ হলেও সুপার টুয়েলভে ‘বি ১’ হিসাবে খেলবে বাংলাদেশ। অর্থাৎ, প্রথম রাউন্ড উতরাতে পারলেই ভারত, পাকিস্তান, নিউজিল্যান্ড ও আফগানিস্তানের গ্রুপে পড়বে বাংলাদেশ। ২২ অক্টোবর প্রথম রাউন্ড শেষে ২৩ অক্টোবর শুরু হবে সুপার টুয়েলভের লড়াই।

কাছাকাছি শক্তির অনেক দল থাকায় এবারের আসরে পরিষ্কার কোনো ফেভারিট নেই। তবে ক্রিকেটবোদ্ধারা এগিয়ে রাখছেন ভারত, ইংল্যান্ড ও বর্তমান চ্যাম্পিয়ন ওয়েস্ট ইন্ডিজকে। সাড়ে পাঁচ বছর আগে কার্লোস ব্রাফেটের দুর্দমনীয় ব্যাটিংয়ে চার উইকেটে ইংল্যান্ডকে হারিয়ে চ্যাম্পিয়ন হয়েছিল ওয়েস্ট ইন্ডিজ। শিরোপার দাবিদার না হলেও প্রথম রাউন্ডে হট ফেভারিট বাংলাদেশ।

আসরের ১৬ দলের মধ্যে এ বছর দ্বিতীয় সর্বোচ্চ নয়টি টি ২০ জিতেছে বাংলাদেশ। প্রস্তুতি ম্যাচে শ্রীলংকা ও আয়ারল্যান্ডের কাছে হারলেও বাংলাদেশের লক্ষ্য এবার সেমিফাইনাল। তবে প্রথম ম্যাচের প্রতিপক্ষ স্কটল্যান্ড যেভাবে হুংকার দিচ্ছে, তাতে স্পষ্ট প্রথম রাউন্ডের চ্যালেঞ্জটা খুব সহজ হবে না মাহমুদউল্লাহদের জন্য। স্কটিশ কোচ শেন বার্জার কাল হুমকির সুরেই বলেছেন, ‘যে কোনো দলকে হারাতে পারি আমরা। তা সে বাংলাদেশ হোক বা ওমান, পাপুয়া নিউগিনি। বাংলাদেশকে আমরা পাপুয়া নিউগিনি বা ওমানের চেয়ে বড় করে দেখছি না। আমরা তাদের সবার জন্যই হব সবচেয়ে বড় ম্যাচ।’ বাংলাদেশ ও স্কটল্যান্ড একটিমাত্র টি ২০ আন্তর্জাতিক ম্যাচ খেলেছে এরআগে। সেই ম্যাচে হেরেছে বাংলাদেশ। যদিও ওডিআই চার ম্যাচের সবকটিতে বাংলাদেশ হারিয়েছে স্কটিশদের। বাংলাদেশের টি ২০ বিশ্বকাপ রেকর্ড আশা জাগানিয়া নয় (২৫ ম্যাচে মাত্র পাঁচ জয়), কিন্তু ভুলে গেলে চলবে না যে, গত আগস্ট ও সেপ্টেম্বরে অস্ট্রেলিয়া এবং নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে হোম সিরিজে ১০ ম্যাচের সাতটিতে জিতেছে বাংলাদেশ। বি-গ্রুপ থেকে মাহমুদউল্লাহদের সুপার টুয়েলভে খেলা নিয়ে কোনো সংশয় নেই। প্রশ্ন হলো, শেষ ১২-তে তারা কার বারোটা বাজাবে।

এক্ষেত্রে বাংলাদেশের দুই মারণাস্ত্র হতে পারেন সাকিব আল হাসান ও মোস্তাফিজুর রহমান। যদিও সদ্যসমাপ্ত আইপিএলে নিজেদের নামের প্রতি সুবিচার করতে পারেননি তারা। তবে বিশ্বকাপের বড় মঞ্চে নিজেদের প্রমাণের তাগিদ তাদের উদ্বুদ্ধ করতে পারে শানিত পারফরম্যান্স প্রদর্শনের জন্য।